গরুর গোস কী পরিমাণ খাওয়া নিরাপদ…

Share
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on skype
Share on email

গরুর গোস কী পরিমাণ খাওয়া নিরাপদ

অনেকেরই ধারণা গরুর গোস খেলেই বুঝি স্বাস্থ্যের অনেক ক্ষতি হয়ে যাবে। গরুর গোসে প্রচুর কোলেস্টেরল থাকায় অনেকেই সেটি খাওয়া এড়িয়ে চলেন।

কিন্তু পুষ্টিবিদরা জানিয়েছেন, গরুর গোসের ক্ষতিকর দিক যেমন আছে, তেমনি এই গোসে অনেক উপকারও করে থাকে। এবং গরুর গোসে যতো পুষ্টিগুণ আছে সেগুলো অন্য কোন খাবার থেকে পাওয়া কঠিন।

 

এখন এই গোস আপনার জন্য ক্ষতিকর হবে না উপকারী, সেটা নির্ভর করবে আপনি সেটা কতোটা নিয়ম মেনে, কি পরিমাণে খাচ্ছেন।

গরুর গোসের পুষ্টিগুণ:

পুষ্টিবিদরা জানিয়েছেন, গরুর গোসে রয়েছে আমাদের শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় প্রোটিন, ভিটামিনস, মিনারেলস বা খনিজ উপাদান। যেমন- জিঙ্ক, সেলেনিয়াম, ফসফরাস, আয়রন। আবার ভিটামিনের মধ্যে রয়েছে ভিটামিন বি২, বি৩, বি৬, এবং বি১২। আর এই পুষ্টিকর উপাদানগুলোর কার্যকারিতাগুলো হলো:

  • রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।
  • পেশি, দাঁত ও হাড়ের গঠনে ভূমিকা রাখে।
  • ত্বক/চুল ও নখের স্বাস্থ্য ভালো রাখে।
  • শরীরের বৃদ্ধি ও বুদ্ধি বাড়াতে ভূমিকা রাখে।
  • ক্ষত নিরাময়ে সাহায্য করে।
  • দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখে।
  • অতিরিক্ত আলসেমি/ ক্লান্তি বা শরীরের অসাড়তা দূর করে কর্মোদ্যম রাখে।
  • ডায়রিয়া প্রতিরোধে সাহায্য করে।
  • রক্তস্বল্পতা প্রতিরোধ করে।
  • খাবার থেকে দেহে শক্তি যোগান দেয়।
  • স্মৃতিশক্তি বাড়ায়।
  • অবসাদ/ মানসিক বিভ্রান্তি/ হতাশা দূর করে।

কার জন্য কতোটুকু প্রোটিন:

গরুর গোস, হাড়, কলিজা, মগজ ইত্যাদি থেকে প্রোটিন পাওয়া যায়। সবচেয়ে বেশি প্রোটিন থাকে মগজে, এরপর কলিজায়, তারপর গোশতে।

পুষ্টিবিদ চৌধুরী তাসনিম হাসিন জানিয়েছেন প্রতিদিনের প্রোটিনের চাহিদা নির্ভর করে আপনার ওজনের ওপর। ধরলাম একজন মানুষের আদর্শ ওজন ৫০ কেজি।

তিনি যদি সুস্থ থাকেন তাহলে প্রতিদিন তার ৫০ গ্রামের মতো প্রোটিন প্রয়োজন, তবে যদি তার কিডনি জটিলতা থাকে তাহলে তিনি প্রতিদিন ২৫ গ্রাম প্রোটিন খাবেন। মানে স্বাভাবিকের চেয়ে অর্ধেক।

আবার মেয়েদের মাসিক চলাকালীন কিংবা গর্ভবতী অবস্থায় এই পরিমাণ দ্বিগুণ হয়ে যাবে।

অর্থাৎ আদর্শ ওজন ৫০ কেজি হলে তারা ১০০ গ্রাম পর্যন্ত প্রোটিন খেতে পারবেন।

যাদের ওজন আদর্শ ওজনের চাইতে কম তাদেরও বেশি বেশি প্রোটিন খাওয়া প্রয়োজন।

তবে কারোই প্রতিদিন ৭০ গ্রামের বেশি এবং সপ্তাহে ৫০০ গ্রামের বেশি প্রোটিন খাওয়া উচিত না বলে ব্রিটেনের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ জানিয়েছে।

প্রতি ১০০ গ্রাম গরুর গোসে ২৬ গ্রাম প্রোটিন এবং ২ গ্রাম ফ্যাট থাকে। তার মানে প্রতিদিনের এই প্রোটিনের চাহিদা পূরণে কি আপনি ২৭০ গ্রাম গোস খাবেন,একদমই না। কেননা দৈনিক প্রোটিনের চাহিদা একটি খাবার নয় বরং বিভিন্ন খাবার ও পানীয় দিয়ে আমরা পূরণ করে থাকি।

মোঃ শফিকুল ইসলাম

ডি, এইস, এম, এস, ঢাকা।

Advertisement

Share
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on skype
Share on email

Readers comments

Sponsored

Official Facebook page

Sponsored